• VIP Member
  • Aladdin Domain & Hosting Division
  • Lives in Dhaka
  • From Chandpur
  • Male
  • Single
  • 13/12/1997
  • Followed by 143 people
Social Links
Pinned Post
#হারাম_থেকে_সাবধানঃ

বর্তমানে অনলাইনে টাকা উপার্জনের অনেক এপস অথবা ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে সর্বত্র ফিতনার ছড়াছড়ি। টাকা আয় করা যাবে অমুক এপ দিয়ে এই শিরোনাম দেখলেই আমরা হুমড়ি খেয়ে পড়ি। অথচ এই ইনকামের টাকা টা কি হালাল নাকি হারাম তা নিয়ে কোনো কুন্ঠাবোধ নেই আমাদের।

বর্তমানে আয়ের জন্য ৫ টি জনপ্রিয় এপ্স হলো ফেসবুক, ইউটিউব, Spc, টিকটক আর স্ন্যাক ভিডিও। এই প্রত্যেকটি এপস থেকেই উপার্জন অবশ্যই হালাল হবে না। কারন গুলো আসুন জেনে নেই।

১) YouTube & Facebook : অনেকেই ভাবছেন যে ইউটিউব আর ফেসবুকে তো সবাই নিজের মেধা খাটিয়ে কন্টেন্ট বানিয়ে উপার্জন করে তাহলে সেটা কেনো হারাম?

কারন সত্যি বলতে এই দুটোতেই টাকা পাওয়ার উৎস হলো "AdSense "। অর্থাৎ আপনার ভিডিও তে ইউটিউব, ফেসবুক কতৃপক্ষ তাদের পছন্দমতো এড চালাবে আর এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। যত বেশি এড তত বেশি ইনকাম। মুল যেই ভিডিও আপনি বানান তার কোয়ালিটি আর ভিউ যতই বেশি হোক না কেন তা ম্যাটারই করে না!! অরিজিনাল ভিউ থেকে আয় এতই নগন্য যে তা আপনি নাই ধরতে পারেন।

আপনার মনে এবার প্রশ্ন জাগতে পারে " AdSense " কেন হারাম?
কারন একটাই AdSense এর মাধ্যমে যে এড আপনাত ভিডিওতে চলবে তার উপর আপনার কোনো অধিকার নাই। আপনি জাস্ট কোন ক্যাটাগরির এড আপনার ভিডিওতে চলবে তা চয়েজ করতে পারবেন। এবার তারা তাদের ইচ্ছামতো গান, নাচ, অশ্লীল ভিডিও, বেপর্দা নারীদের ভিডিও এড হিসেবে দেখালেও আপনার তাই মেনে নিতে হবে। আর ম্যাক্সিমাম এড এই রিলেটেড ই হয়। এবার বুঝে দেখুন এটা হালাল তো নয় ই উলটো হারাম!! এই জন্য বিভিন্ন ইসলামিক স্কলারস রা তাদের ভিডিওতে AdSense বন্ধ করে রাখেন কারন তারা শুধু দ্বীন প্রচারের জন্য ভিডিও আপলোড করেন তা থেকে লাভের আশায় নয়।

২) SPC : এটাও ইদানীং অনেকেই ব্যবহার করেন। এই এপসের মুল কাজ হলো প্রথমে আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করবেন তারপর একটা নির্ধারিত কাজ করতে করতে একসময় সেই ইনভেস্টমেন্ট এর টাকাটা উঠে যাবে আর এরপর যে টাকা আপনি আয় করবেন তা আপনার লাভ। কিন্তু গন্ডগোল হলো কাজটা নিয়ে। এই এপসেও বিভিন্ন এড কয়েক সেকেন্ড আপনাকে দেখতে হবে। এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। অর্থাৎ সেই ঘুরে ফিরে AdSense এর মতোই হারাম আর অশ্লীলতার প্রসার!!

৩) Tiktok & Snack video : এই দুটো এপস ইদানীং এতো বেশি মাত্রায় ব্যবহার করছে যে এটা নিয়ে না লিখলেই নয়। টিকটক তো অশ্লীলতায় ভরা সেটা সবাই জানি আমরা। কয়েক সেকেন্ডের গানে নেচে, গেয়ে, মুখ মিলিয়ে বিভিন্ন ভঙিমায় ভিডিও করা হয় যা স্পষ্টত হারাম। আর এই হারাম এপস থেকে টাকা নেয়া কি তাহলে হালাল হবে?
ঠিক স্ন্যাক এপেও ভিডিও দেখার জন্যই টাকা দেয়া হয়। অনেককে আবার বলতে দেখেছি যে আমি তো ভিডিও দেখি না, আমি শুধু রেফার করি। আর ভাই, কথা তো একই!! উল্টো এটা আরো জঘন্য কেননা আপনি আরেকজনকে একটা অশ্লীল প্ল্যাটফর্মে ইনভাইট করছেন। সে এই ইনভাইটেশন গ্রহণ করলে যত গুলো ভিডিও সে দেখবে তার সমপরিমাণ গুনাহ আপনার আমলনামায় ও লিখা হবে। আল্ল-হুম্মাগ'ফিরলি!! এবার ভাবুন এই টাকা হালাল হওয়ার আদৌ কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা!

শেষ যমানায় মানুষ হারামকে হালাল করার প্রচেষ্টা করবে। আর এখন তাই হচ্ছে।একজন মুসলিম কখনোই টাকার জন্য নিজের ইমানের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো কাজ করতে পারে না। তাই, আসুন এই এপস গুলো নিজে ব্যবহার থেকে বিরত থাকি আর অন্যদের ও সাবধান করি। না হয় এর দায়ভার আমাদের সবার নিতে হবে।
#হারাম_থেকে_সাবধানঃ বর্তমানে অনলাইনে টাকা উপার্জনের অনেক এপস অথবা ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে সর্বত্র ফিতনার ছড়াছড়ি। টাকা আয় করা যাবে অমুক এপ দিয়ে এই শিরোনাম দেখলেই আমরা হুমড়ি খেয়ে পড়ি। অথচ এই ইনকামের টাকা টা কি হালাল নাকি হারাম তা নিয়ে কোনো কুন্ঠাবোধ নেই আমাদের। বর্তমানে আয়ের জন্য ৫ টি জনপ্রিয় এপ্স হলো ফেসবুক, ইউটিউব, Spc, টিকটক আর স্ন্যাক ভিডিও। এই প্রত্যেকটি এপস থেকেই উপার্জন অবশ্যই হালাল হবে না। কারন গুলো আসুন জেনে নেই। ১) YouTube & Facebook : অনেকেই ভাবছেন যে ইউটিউব আর ফেসবুকে তো সবাই নিজের মেধা খাটিয়ে কন্টেন্ট বানিয়ে উপার্জন করে তাহলে সেটা কেনো হারাম? কারন সত্যি বলতে এই দুটোতেই টাকা পাওয়ার উৎস হলো "AdSense "। অর্থাৎ আপনার ভিডিও তে ইউটিউব, ফেসবুক কতৃপক্ষ তাদের পছন্দমতো এড চালাবে আর এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। যত বেশি এড তত বেশি ইনকাম। মুল যেই ভিডিও আপনি বানান তার কোয়ালিটি আর ভিউ যতই বেশি হোক না কেন তা ম্যাটারই করে না!! অরিজিনাল ভিউ থেকে আয় এতই নগন্য যে তা আপনি নাই ধরতে পারেন। আপনার মনে এবার প্রশ্ন জাগতে পারে " AdSense " কেন হারাম? কারন একটাই AdSense এর মাধ্যমে যে এড আপনাত ভিডিওতে চলবে তার উপর আপনার কোনো অধিকার নাই। আপনি জাস্ট কোন ক্যাটাগরির এড আপনার ভিডিওতে চলবে তা চয়েজ করতে পারবেন। এবার তারা তাদের ইচ্ছামতো গান, নাচ, অশ্লীল ভিডিও, বেপর্দা নারীদের ভিডিও এড হিসেবে দেখালেও আপনার তাই মেনে নিতে হবে। আর ম্যাক্সিমাম এড এই রিলেটেড ই হয়। এবার বুঝে দেখুন এটা হালাল তো নয় ই উলটো হারাম!! এই জন্য বিভিন্ন ইসলামিক স্কলারস রা তাদের ভিডিওতে AdSense বন্ধ করে রাখেন কারন তারা শুধু দ্বীন প্রচারের জন্য ভিডিও আপলোড করেন তা থেকে লাভের আশায় নয়। ২) SPC : এটাও ইদানীং অনেকেই ব্যবহার করেন। এই এপসের মুল কাজ হলো প্রথমে আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করবেন তারপর একটা নির্ধারিত কাজ করতে করতে একসময় সেই ইনভেস্টমেন্ট এর টাকাটা উঠে যাবে আর এরপর যে টাকা আপনি আয় করবেন তা আপনার লাভ। কিন্তু গন্ডগোল হলো কাজটা নিয়ে। এই এপসেও বিভিন্ন এড কয়েক সেকেন্ড আপনাকে দেখতে হবে। এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। অর্থাৎ সেই ঘুরে ফিরে AdSense এর মতোই হারাম আর অশ্লীলতার প্রসার!! ৩) Tiktok & Snack video : এই দুটো এপস ইদানীং এতো বেশি মাত্রায় ব্যবহার করছে যে এটা নিয়ে না লিখলেই নয়। টিকটক তো অশ্লীলতায় ভরা সেটা সবাই জানি আমরা। কয়েক সেকেন্ডের গানে নেচে, গেয়ে, মুখ মিলিয়ে বিভিন্ন ভঙিমায় ভিডিও করা হয় যা স্পষ্টত হারাম। আর এই হারাম এপস থেকে টাকা নেয়া কি তাহলে হালাল হবে? ঠিক স্ন্যাক এপেও ভিডিও দেখার জন্যই টাকা দেয়া হয়। অনেককে আবার বলতে দেখেছি যে আমি তো ভিডিও দেখি না, আমি শুধু রেফার করি। আর ভাই, কথা তো একই!! উল্টো এটা আরো জঘন্য কেননা আপনি আরেকজনকে একটা অশ্লীল প্ল্যাটফর্মে ইনভাইট করছেন। সে এই ইনভাইটেশন গ্রহণ করলে যত গুলো ভিডিও সে দেখবে তার সমপরিমাণ গুনাহ আপনার আমলনামায় ও লিখা হবে। আল্ল-হুম্মাগ'ফিরলি!! এবার ভাবুন এই টাকা হালাল হওয়ার আদৌ কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা! শেষ যমানায় মানুষ হারামকে হালাল করার প্রচেষ্টা করবে। আর এখন তাই হচ্ছে।একজন মুসলিম কখনোই টাকার জন্য নিজের ইমানের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো কাজ করতে পারে না। তাই, আসুন এই এপস গুলো নিজে ব্যবহার থেকে বিরত থাকি আর অন্যদের ও সাবধান করি। না হয় এর দায়ভার আমাদের সবার নিতে হবে।
3
0 Comments 0 Shares
Recent Updates
  • হাউ ফানি!😂
    ইন্টারনেটে বিজ্ঞপ্তি দেয় ইন্টারনেট বিমুখ হাফেজ লাগবে।
    এরা কারা, কোথেকে এলো এরা?🤗🤗

    এইবার একটা কল মাইরা বলা দরকার, আমিতো ইন্টারনেট ইউজ করিনা তবে
    অনলাইনে বিজ্ঞপ্তি দেখেছি এখন আমি কি চাকরি পাবো?🧐


    ভাইরে ভাই, আমাকে ৫ লাখ টাকা বেতনে এখানে মুহতামিম পদ দিলেও চাকরি নেব না।🥴
    হাউ ফানি!😂 ইন্টারনেটে বিজ্ঞপ্তি দেয় ইন্টারনেট বিমুখ হাফেজ লাগবে। এরা কারা, কোথেকে এলো এরা?🤗🤗 এইবার একটা কল মাইরা বলা দরকার, আমিতো ইন্টারনেট ইউজ করিনা তবে অনলাইনে বিজ্ঞপ্তি দেখেছি এখন আমি কি চাকরি পাবো?🧐 ভাইরে ভাই, আমাকে ৫ লাখ টাকা বেতনে এখানে মুহতামিম পদ দিলেও চাকরি নেব না।🥴
    1
    0 Comments 0 Shares
  • #গীবত:
    গাছ আমি লাগিয়েছি,যত্ন আমি নিয়েছি,কষ্ট আমি করেছি,সময় আমি দিয়েছি,তারপরও আমার গাছের খেজুর খাচ্ছে অন্যরা!

    এর একমাত্র কারণ আমি অযথা নিজের দোষ ত্রুটি না দেখে অন্যের দোষ-ত্রুটি নিয়ে মাতামাতি করেছি। অযথা চায়ের আড্ডায় অন্যকে নিয়ে কটুকথা বলেছি। হায় আফসোস! কেনো অন্যের সমালোচনা করে নিজের নেক-আমল সমুহ নষ্ট করবো?

    গীবত তোমার তাহাজ্জুদ ছিনিয়ে নেবে, তাহাজ্জুদ না থাকলে সুন্নাত আমল নিয়ে নেবে, আর সেটাও না থাকলে তোমার ফরয ইবাদতের আমল নিয়ে নেবে, সবগু‌লোর কোনটা না থাক‌লে ছোট ছোট নেক আমলগু‌লো হ‌লেও নে‌বে, নে‌বেই।

    গীবত সম্পর্কে আল্লাহতা’য়ালা পবিত্র কোরআনে এরশাদ করেন,
    وَیْلٌ لِّكُلِّ هُمَزَةٍ لُّمَزَةِ
    অর্থ: ধ্বংস ওই ব্যক্তির জন্য,যে লোক-সম্মুখে বদনামী করে এবং পৃষ্ঠ-পেছনে (অগোচরে) নিন্দা করে। (সূরা হুমাযাহ্ : ১)

    তাই,নিজের আমল অন্য কাউকে ফ্রিতে দিতে না চাইলে পরনিন্দা করা এখন হ‌তে বন্ধ করতে হবে। আল্লাহ আমাদের অন্যের গীবত করা থেকে হেফাজত করুন। আমিন।

    #Collected
    #গীবত: গাছ আমি লাগিয়েছি,যত্ন আমি নিয়েছি,কষ্ট আমি করেছি,সময় আমি দিয়েছি,তারপরও আমার গাছের খেজুর খাচ্ছে অন্যরা! এর একমাত্র কারণ আমি অযথা নিজের দোষ ত্রুটি না দেখে অন্যের দোষ-ত্রুটি নিয়ে মাতামাতি করেছি। অযথা চায়ের আড্ডায় অন্যকে নিয়ে কটুকথা বলেছি। হায় আফসোস! কেনো অন্যের সমালোচনা করে নিজের নেক-আমল সমুহ নষ্ট করবো? গীবত তোমার তাহাজ্জুদ ছিনিয়ে নেবে, তাহাজ্জুদ না থাকলে সুন্নাত আমল নিয়ে নেবে, আর সেটাও না থাকলে তোমার ফরয ইবাদতের আমল নিয়ে নেবে, সবগু‌লোর কোনটা না থাক‌লে ছোট ছোট নেক আমলগু‌লো হ‌লেও নে‌বে, নে‌বেই। গীবত সম্পর্কে আল্লাহতা’য়ালা পবিত্র কোরআনে এরশাদ করেন, وَیْلٌ لِّكُلِّ هُمَزَةٍ لُّمَزَةِ অর্থ: ধ্বংস ওই ব্যক্তির জন্য,যে লোক-সম্মুখে বদনামী করে এবং পৃষ্ঠ-পেছনে (অগোচরে) নিন্দা করে। (সূরা হুমাযাহ্ : ১) তাই,নিজের আমল অন্য কাউকে ফ্রিতে দিতে না চাইলে পরনিন্দা করা এখন হ‌তে বন্ধ করতে হবে। আল্লাহ আমাদের অন্যের গীবত করা থেকে হেফাজত করুন। আমিন। #Collected
    3
    0 Comments 0 Shares
  • “ইয়াতিম করে চলে গেলেন ওস্তাদ কালিমুল্লাহ,
    জা্ন্নাতে তাকে দিওগো ঠাঁই হে দয়াময় আল্লাহ।”
    ---------------------------------------------
    চলে গেলেন হাজারো কুরআনে হাফেজ গড়ার কারিগর, ওস্তাদুল হুফফাজ, প্রিয় ওস্তাদ হযরত মাওলানা হাফেজ কালিমুল্লাহ (রহঃ)। যার সান্যিধ্যে অর্জিত হয়েছে জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন মহান প্রভুর শাশ্বত জীবন বিধান মহাগ্রন্থ আল কুরআন।


    انا لله وانا اليه راجعون. اللهم اغفر ذنوبه جميعا واجعل قبره روضة من رياض الجنة واجعل الجنة مثواه امين يا رب العالمين.


    ওগো আল্লাহ,
    এই দ্বীনি রাহবারকে তার জীবনের সকল ভুলভ্রান্তিগুলো ক্ষমা করে জান্নাতুল ফেরদাউস এর সুউচ্চ মাকামের মেহমান হিসেবে কবুল করুন! এবং আমীন!
    “ইয়াতিম করে চলে গেলেন ওস্তাদ কালিমুল্লাহ, জা্ন্নাতে তাকে দিওগো ঠাঁই হে দয়াময় আল্লাহ।” --------------------------------------------- চলে গেলেন হাজারো কুরআনে হাফেজ গড়ার কারিগর, ওস্তাদুল হুফফাজ, প্রিয় ওস্তাদ হযরত মাওলানা হাফেজ কালিমুল্লাহ (রহঃ)। যার সান্যিধ্যে অর্জিত হয়েছে জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন মহান প্রভুর শাশ্বত জীবন বিধান মহাগ্রন্থ আল কুরআন। انا لله وانا اليه راجعون. اللهم اغفر ذنوبه جميعا واجعل قبره روضة من رياض الجنة واجعل الجنة مثواه امين يا رب العالمين. ওগো আল্লাহ, এই দ্বীনি রাহবারকে তার জীবনের সকল ভুলভ্রান্তিগুলো ক্ষমা করে জান্নাতুল ফেরদাউস এর সুউচ্চ মাকামের মেহমান হিসেবে কবুল করুন! এবং আমীন!
    7
    2 Comments 0 Shares
  • দালাল মিডিয়ার কারনে যে সত্যগুলো সামনে আসছেনা:
    করোনার টিকা vs হিটলারের “নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট”
    ----------------------------------------------------------------

    “হিটলার” এর গঠন করা নাৎসি বাহিনীর দ্বারা ইহুদি ধবংস করার অংশ হিসেবে তখনকার হিটলারের “শুভাকাঙ্ক্ষী ডাক্তার” (Well wisher Doctors) মানুষের উপর কিছু ভয়ংকর ও অবিশ্বাস্য এক্সপেরিমেন্ট চালিয়েছিলো। ইতিহাসের পাতায় যাকে “নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট” (Nazi Human experiment) বলে।

    হিটলারের কথা ছিল “ ইহুদীদের তো মেরেই ফেলব, খারাপ জাতি মরার আগে মানব কল্যাণে কিছু করে যাক”। তাই এডলফ হিটলার নিজেই এই সব মেডিকেল উদ্ভাবনের পৃষ্ঠ্যপোষক ছিলেন। ডাক্তার দলে ছিলেন- “এডওয়ার্ড উইরথ”, “আরিবার্ট হেইম” , “কার্ল ব্রান্ডোট” , “জোসেফ মেনগেল” প্রমুখ। এক্সপেরিমেন্টের সাবিজেক্ট ছিল ইউরোপে বসবাসকারী ইহুদী রা। সাথে কিছু সোভিয়েত ইউনিয়নের আটকা পরা রাজবন্দী ও জার্মানীর বেশী বয়স্ক মৃত্যু পথযাত্রী রোগীরা (Terminal Stage Patients)।
    পরীক্ষার জায়গা – “জার্মানীর বার্লিন, মিউনিখ, ফ্রাঙ্কফুট” প্রভৃতি শহর গুলো। সময় কাল- ১৯৩৩ থেকে ১৯৪৪ সালের শেষের দিক পর্যন্ত। অনেকগুলো বিষয়ে তাদের উপর এক্সপেরিমেন্ট চালানো হয়, তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ছিলো ভ্যাক্সিন এক্সপেরিমেন্ট।

    বিসিজি (Baccile Calmet Guirine), হেপাটাইটিস (Hepatitis), টাইফাস (Typhus), টাইফয়েড (Typhoid) এর ভ্যাক্সিন, এন্টিসিরাম শরীরের উপর কি ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া করে , তা দেখার জন্য করা হয় এই এক্সপেরিমেন্ট । অনেকেই এন্টিসিরামের টক্সিসিটিতে মারা গিয়েছিল।
    এজন্য এ ঘটনার পর থেকে যেকোনো মেডিকেল এক্সপেরিমেন্টের আগে সাবজেক্টের কাছে থেকে “ইনফরমড রিটেন কনসেন্ট” (INFORMED WRITTEN CONSENT) নিতে হয় । এটা “১৯৪৭ নুরেমবার্গ কোড অফ ইথিকস” দ্বারা নিয়ন্ত্রিত।

    #লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে,
    বাংলাদেশে সুরক্ষা এপসে আগে ভ্যাক্সিন নিবন্ধনের জন্য ‘ইনফরম রিটেন কনসেন্ট’ ফর্মপূরণে কিছু ডাটা ফিলআপ করতে হতো। কিন্তু গণটিকা শুরু হওয়ার পর সেই অংশগুলো সরকার উঠিয়ে দিয়েছে। এখন শুধু নাম বা ভোটার আইডি কার্ড দিলে নিবন্ধন হয়ে যায় এবং ইনফরম রিটেন কনসেন্ট অটো জেনারেট করে।

    ফলে টিকা গ্রহিতার কাছ থেকে কোন রূপ সম্মতি নেয়া হয় না। এছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের টিকা নেওয়ার জন্য চাপ দেওয়ায়, বেতন বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়ে টিকা নিতে বাধ্য করায় সেই হিটলারের নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট নবরূপ যেন আরো ভয়ঙ্কর ও বড় আকারে ফিরে এসেছে।

    ©NC 6
    দালাল মিডিয়ার কারনে যে সত্যগুলো সামনে আসছেনা: করোনার টিকা vs হিটলারের “নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট” ---------------------------------------------------------------- “হিটলার” এর গঠন করা নাৎসি বাহিনীর দ্বারা ইহুদি ধবংস করার অংশ হিসেবে তখনকার হিটলারের “শুভাকাঙ্ক্ষী ডাক্তার” (Well wisher Doctors) মানুষের উপর কিছু ভয়ংকর ও অবিশ্বাস্য এক্সপেরিমেন্ট চালিয়েছিলো। ইতিহাসের পাতায় যাকে “নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট” (Nazi Human experiment) বলে। হিটলারের কথা ছিল “ ইহুদীদের তো মেরেই ফেলব, খারাপ জাতি মরার আগে মানব কল্যাণে কিছু করে যাক”। তাই এডলফ হিটলার নিজেই এই সব মেডিকেল উদ্ভাবনের পৃষ্ঠ্যপোষক ছিলেন। ডাক্তার দলে ছিলেন- “এডওয়ার্ড উইরথ”, “আরিবার্ট হেইম” , “কার্ল ব্রান্ডোট” , “জোসেফ মেনগেল” প্রমুখ। এক্সপেরিমেন্টের সাবিজেক্ট ছিল ইউরোপে বসবাসকারী ইহুদী রা। সাথে কিছু সোভিয়েত ইউনিয়নের আটকা পরা রাজবন্দী ও জার্মানীর বেশী বয়স্ক মৃত্যু পথযাত্রী রোগীরা (Terminal Stage Patients)। পরীক্ষার জায়গা – “জার্মানীর বার্লিন, মিউনিখ, ফ্রাঙ্কফুট” প্রভৃতি শহর গুলো। সময় কাল- ১৯৩৩ থেকে ১৯৪৪ সালের শেষের দিক পর্যন্ত। অনেকগুলো বিষয়ে তাদের উপর এক্সপেরিমেন্ট চালানো হয়, তার মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য ছিলো ভ্যাক্সিন এক্সপেরিমেন্ট। বিসিজি (Baccile Calmet Guirine), হেপাটাইটিস (Hepatitis), টাইফাস (Typhus), টাইফয়েড (Typhoid) এর ভ্যাক্সিন, এন্টিসিরাম শরীরের উপর কি ধরনের বিরূপ প্রতিক্রিয়া করে , তা দেখার জন্য করা হয় এই এক্সপেরিমেন্ট । অনেকেই এন্টিসিরামের টক্সিসিটিতে মারা গিয়েছিল। এজন্য এ ঘটনার পর থেকে যেকোনো মেডিকেল এক্সপেরিমেন্টের আগে সাবজেক্টের কাছে থেকে “ইনফরমড রিটেন কনসেন্ট” (INFORMED WRITTEN CONSENT) নিতে হয় । এটা “১৯৪৭ নুরেমবার্গ কোড অফ ইথিকস” দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। #লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে, বাংলাদেশে সুরক্ষা এপসে আগে ভ্যাক্সিন নিবন্ধনের জন্য ‘ইনফরম রিটেন কনসেন্ট’ ফর্মপূরণে কিছু ডাটা ফিলআপ করতে হতো। কিন্তু গণটিকা শুরু হওয়ার পর সেই অংশগুলো সরকার উঠিয়ে দিয়েছে। এখন শুধু নাম বা ভোটার আইডি কার্ড দিলে নিবন্ধন হয়ে যায় এবং ইনফরম রিটেন কনসেন্ট অটো জেনারেট করে। ফলে টিকা গ্রহিতার কাছ থেকে কোন রূপ সম্মতি নেয়া হয় না। এছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের টিকা নেওয়ার জন্য চাপ দেওয়ায়, বেতন বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দিয়ে টিকা নিতে বাধ্য করায় সেই হিটলারের নাৎসি হিউম্যান এক্সপেরিমেন্ট নবরূপ যেন আরো ভয়ঙ্কর ও বড় আকারে ফিরে এসেছে। ©NC 6
    8
    0 Comments 1 Shares
  • মৃত্যু নিয়ে এতো সুন্দর লেখা আগে পড়িনি
    একটু পড়েই দেখুন না। জাযাকাল্লাহ।

    পরলোকগত কুয়েতি লেখক আব্দুল্লাহ যারাল্লাহ'র
    মৃত্যুর আগে লিখে যাওয়া কিছু অনুভূতি -
    ------------------------------------------------------------------------------
    "মৃত্যু নিয়ে আমি কোনো দুশ্চিন্তা করবো না, আমার মৃতদেহের কি হবে সেটা নিয়ে কোন অযথা আগ্রহ দেখাবো না। আমি জানি আমার মুসলিম ভাইয়েরা করণীয় সবকিছুই যথাযথভাবে করবে।"
    يُجَرِّدُونَنِي مِنْ مَلَابِسِي
    তারা প্রথমে আমার পরনের পোশাক খুলে আমাকে বিবস্ত্র করবে,
    يَغْسِلُونَني
    আমাকে গোসল করাবে,
    يَكْفِنُونَنِي
    (তারপর) আমাকে কাফন পড়াবে,
    يُخْرِجُونَنِي مِنْ بَيْتِي
    আমাকে আমার বাসগৃহ থেকে বের করবে,
    يَذهَبُونَ بِي لِمَسَكِنِي الجَدِيدِ (القَبْرُ)
    আমাকে নিয়ে তারা আমার নতুন বাসগৃহের (কবর) দিকে রওনা হবে,
    وَسَيَأتِي كَثِيرُونَ لِتَشْيِيْعِ الجَنَازَتِي
    আমাকে বিদায় জানাতে বহু মানুষের সমাগম হবে,
    بَلْ سَيَلْغِي الكَثِيرُ مِنهُم أَعْمَالَهُ وَمَوَاعِيدَهُ لِأَجْلِي دَفْنِي
    অনেক মানুষ আমাকে দাফন দেবার জন্য তাদের প্রাত্যহিক কাজকর্ম কিংবা সভার সময়সূচী বাতিল করবে,
    وَقَدْ يَكُونُ الكَثِيرُ مِنهُم لَمْ يَفَكِّرْ في نَصِيحَتِي يَوماً مِنْ الأيّامِ
    কিন্তু দুঃখজনকভাবে অধিকাংশ মানুষ এর পরের দিনগুলোতে আমার এই উপদেশগুলো নিয়ে গভীর ভাবে চিন্তা করবে না,
    أَشْيَائِي سَيَتِمُّ التَّخَلُّصُ مِنهَا
    আমার (ব্যক্তিগত) জিনিষের উপর আমি অধিকার হারাবো,
    مَفَاتِيحِي
    আমার চাবির গোছাগূলো,
    كِتَابِي
    আমার বইপত্র,
    حَقِيبَتِي
    আমার ব্যাগ,
    أَحْذِيَتِي
    আমার ‍জুতোগুলো,
    وإنْ كانَ أَهْلِي مُوَفِّقِينَ فَسَوفَ يَتَصَدِّقُونَ بِها لِتَنْفَعَنِي
    হয়তো আমার পরিবারের লোকেরা আমাকে উপকৃত করার জন্য আমার ব্যবহারের জিনিসপত্র দান করে দেবার বিষয়ে একমত হবে,
    تَأَكِّدُوا بِأَنَّ الدُّنيا لَنْ تَحْزَنْ عَلَيَّ
    এ বিষয়ে তোমরা নিশ্চিত থেকো যে, এই দুনিয়া তোমার জন্য দু:খিত হবে না অপেক্ষাও করবে না,
    وَلَنْ تَتَوَقَّفْ حَرَكَةُ العَالَمِ
    এই দুনিয়ার ছুটে চলা এক মুহূর্তের জন্যও থেমে যাবে না,
    وَالاِقْتِصَادُ سَيَسْتَمِرُ
    অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড কিংবা ব্যবসাবাণিজ্য সবকিছু চলতে থাকবে,
    وَوَظِيْفَتِي سَيَأتِي غَيرِي لِيَقُومَ بَها
    আমার দায়িত্ব (কাজ) অন্য কেউ সম্পাদন করা শুরু করবে,
    وَأَمْوَالِي سِيَذْهَبُ حَلَالاً لِلوَرَثِةِ
    আমার ধনসম্পদ বিধিসম্মত ভাবে আমার ওয়ারিসদের হাতে চলে যাবে,
    بَينَمَا أنا سَأُحَاسِبُ عَليها
    অথচ এর মাঝে এই সম্পদের জন্য আমার হিসাব-নিকাশ আরম্ভ হয়ে যাবে,
    القَلِيلُ والكَثِيرُ.....النَقِيرُ والقَطمِيرُ......
    ছোট এবং বড়….অনুপরিমাণ এবং কিয়দংশ পরিমান, (সবকিছুর হিসাব)
    وَإن أَوَّلَ ما مَوتِي هو اِسمِي !!!!
    আমার মৃত্যুর পর সর্বপ্রথম যা (হারাতে) হবে, তা আমার নাম!!!
    لِذَلكَ عِنْذَما يَمُوتُ سَيَقُولُونَ عَنِّي أَينَ "الجُنَّةُت"...؟
    কেননা, যখন আমি মৃত্যুবরণ করবো, তারা আমাকে উদ্দেশ্য করে বলবে, কোথায় “লাশ”?
    وَلَن يَنَادُونِي بَاِسمِي....
    কেউ আমাকে আমার নাম ধরে সম্বোধন করবে না,
    وَعِندَما يُرِيدُونَ الصَّلاةَ عَلَيَّ سِيَقُلُونَ اُحْضُرُوا "الجَنَازَةَ" !!!
    যখন তারা আমার জন্য (জানাযার) নামাজ আদায় করবে, বলবে, “জানাযাহ” নিয়ে আসো,
    وَلَن يُنَادُونِي يِاسْمِي ....!
    তারা আমাকে নাম ধরে সম্বোধন করবে না….!
    وَعِندَما يَشْرَعُونَ بِدَفنِي سَيَقُولُونَ قَرِّبُوا المَوتَ وَلَنْ يَذكُرُوا اِسمِي ....!
    আর, যখন তারা দাফন শুরু করবে বলবে, মৃতদেহকে কাছে আনো, তারা আমার নাম ধরে ডাকবে না…!
    لِذَلِكَ لَن يَغُرَّنِي نَسبِي وَلا قَبِيلَتِي وَلَن يَغُرَّنِي مَنْصَبِي وَلا شَهرَتِي ....
    এজন্যই দুনিয়ায় আমার বংশপরিচয়, আমার গোত্র পরিচয়, আমার পদমযার্দা, এবং আমার খ্যাতি কোনকিছুই আমাকে যেন ধোঁকায় না ফেলে,
    فَمَا أَتْفَهُ هَذِهِ الدُّنْيَا وَمَا أَعْظَمَ مُقَلِّبُونَ عَليهِ .....
    এই দুনিয়ার জীবন কতই না তুচ্ছ, আর, যা কিছু সামনে আসছে তা কতই না গুরুতর বিষয়…
    فَيا أَيُّهَا الحَيُّ الآنَ ..... اِعْلَمْ أَنَّ الحُزْنَ عَليكَ سَيَكُونُ على ثَلَاثَةٍ أَنْواعٍ:
    অতএব, (শোন) তোমরা যারা এখনো জীবিত আছো,….জেনে রাখো, তোমার (মৃত্যুর পর) তোমার জন্য তিনভাবে দু:খ করা হবে,
    1ــ النَّاسُ الَّذِينَ يَعْرِفُونَكَ سَطْحَيّاً سَيَقُولُونَ مِسْكِينٌ
    ১. যারা তোমাকে বাহ্যিক ভাবে চিনতো, তারা তোমাকে বলবে হতভাগা,
    2ــ أَصْدِقَاؤُكَ سَيَحْزُنُونَ سَاعَات أَو أَيَّامَاً ثُمَّ يَعُودُونَ إِلَى حَدِيثِهِم بَلْ وَضَحِكَهُم.....
    ২. তোমার বন্ধুরা বড়জোর তোমার জন্য কয়েক ঘন্টা বা কয়েক দিন দু:খ করবে, তারপর, তারা আবার গল্পগুজব বা হাসিঠাট্টাতে মত্ত হয়ে যাবে,
    3ــ الحُزْنُ العَمِيقُ فِي البَيْتِ سَيَحْزُنُ أَهْلِكَ أُسْبُوعاً.... أُيسْبُوعَينِ شَهراً ....شَهرَينِ أَو حَتَّى سَنَةً وَبَعْدَهَا سَيَضْعُونَكَ فِي أَرْشِيفِ الذَّكَرِيّاتِ !!!
    ৩. যারা খুব গভীর ভাবে দু:খিত হবে, তারা তোমার পরিবারের মানুষ, তারা এক সপ্তাহ, দুই সপ্তাহ, একমাস, দুইমাস কিংবা বড় জোর একবছর দু:খ করবে। এরপর, তারা তোমাকে স্মৃতির মণিকোঠায় যত্ন করে রেখে দেবে!!!
    اِنْتَهَتْ قِصَّتُكَ بَينَ النَّاسِ وَبَدَأَتْ قِصَّتُكَ الحَقِيْقِيّةِ وَهِيَ الآخِرةُ ....
    মানুষদের মাঝে তোমাকে নিয়ে গল্প শেষ হয়ে যাবে, অত:পর, তোমার জীবনের নতুন গল্প শুরু হবে, আর, তা হবে পরকালের জীবনের বাস্তবতা,
    لَقدْ زَالَ عِندَكَ:
    তোমার নিকট থেকে নি:শেষ হবে (তোমার):
    1ــ الجَمَالُ
    ১. সৌন্দর্য্য
    2ــ والمَالُ
    ২. ধনসম্পদ
    3ــ والصَحَّةُ
    ৩. সুস্বাস্থ্য
    4ــ والوَلَدُ
    ৪. সন্তান-সন্তদি
    5ــ فَارقَت الدَّور
    ৫. বসতবাড়ি
    6ــ القُصُورُ
    ৬. প্রাসাদসমূহ
    7ــ الزَوجُ
    ৭. জীবনসঙ্গী
    وَلَمْ يَبْقِ إِلَّا عَمَلُكَ
    তোমার নিকট তোমার ভালো অথবা মন্দ আমল ব্যতীত আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না,
    وَبَدَأَتِ الحَيَاةُ الحَقِيقَيَّةُ
    শুরু হবে তোমার নতুন জীবনের বাস্তবতা,
    وَالسُّؤَالُ هُنا : ماذا أَعْدَدْتَ لِلقُبَرِكَ وَآخِرَةَكَ مِنَ الآنَ ؟؟؟
    আর, সে জীবনের প্রশ্ন হবে: তুমি কবর আর পরকালের জীবনের জন্য এখন কি প্রস্তুত করে এনেছো?
    هَذِهِ حَقِيقَةٌ تَحْتَاجُ إلى تَأمَّلٍ
    *ব্স্তুত: এই জীবনের বাস্তবতা সম্পর্কে তোমাকে গভীর ভাবে মনোনিবেশ করা প্রয়োজন,*
    لِذَلِكَ أحرصُ عَلى :
    এজন্য ‍তুমি যত্নবান হও,
    1ــ الفَرَائِضِ
    ১. ফরজ ইবাদতগুলোর প্রতি
    2ــ النَّوَافِلِ
    ২. নফল ইবাদতগুলোর প্রতি
    3ــ صَدَقَةُ السِّرِّ
    ৩. গোপন সাদাকাহ’র প্রতি
    4ــ عَمَلُ الصَّلِحِ
    ৪. ভালো কাজের প্রতি
    5ــ صَلاةُ اللَّيلِ
    ৫. রাতের নামাজের প্রতি
    لَعَلَّكَ تَنْجُو....
    যেন তুমি নিজেকে রক্ষা করতে পারো….
    إِنْ سَاعَدْتَ عَلى تَذْكِيرِ النَّاسِ بِهَذِهِ المُقَالَةِ وَأنتَ حَيُّ الآنَ سَتَجِدُ أَثَرَ تَذكِيرِكَ في مِيزَانِكَ يَومَ القِيامَةِ بِإِذْنِ اللهِ .....
    এই লিখাটির মাধ্যমে তুমি মানুষকে উপদেশ দিতে পারো, কারণ তুমি এখনো জীবিত আছো, এর ফলাফল আল্লাহ’র ইচ্ছায় তুমি কিয়ামত দিবসে মিজানের পাল্লায় দেখতে পাবে,
    قال الله تَعالى : ((فَذَكِّرْ فَإِنَّ الذِّكْرَ تَنْفَعُ المُؤمِنِينَ))
    আল্লাহ বলেন: ((আর স্মরণ করিয়ে দাও, নিশ্চয়ই এই স্মরণ মুমিনদের জন্য উপকারী))
    لِمَاذَا يَخْتَارُ المَيِّتِ "الصَّدَقَةَ لو رَجَعَ للدُّنيا....
    তুমি কি জানো কেন মৃতব্যক্তিরা সাদাকাহ প্রদানের আকাঙ্খা করবে, যদি আর একবার দুনিয়ার জীবনে ফিরতে পারতো?
    كَمَا قَالَ تَعَالى: ((رَبِّ لَو لا أَخَّرْتَنِي إلى أَجَلٍ قَرِيبٍ فَأَصَّدَّقَ....))
    আল্লাহ বলেন: ((হে আমার রব! যদি তুমি আমাকে আর একটু সুযোগ দিতে দুনিয়ার জীবনে ফিরে যাবার, তাহলে আমি অবশ্যই সাদাকাহ প্রদান করতাম….))
    ولَمْ يَقُلْ :
    তারা বলবে না,
    لِأعتَمَرَ
    উমরাহ পালন করতাম,
    أو لِأُصَلَّي
    অথবা, সালাত আদায় করতাম,
    أو لِأصُومُ
    অথবা, রোজা রাখতাম,
    قالَ العُلَماءُ : ما ذَكَرَ المَيِّتُ الصَّدَقَةَ إلا لِعَظِيمِ مَا رَأى مِن أَثَرِها بَعدَ مَوتِهِ
    আলেমগণ বলেন: মৃতব্যক্তিরা সাদাকাহ’র কথা বলবে, কারণ তারা সাদাকাহ প্রদানের ফলাফল তাদের মৃত্যুর পর দেখতে পাবে,
    فَأَكْثِرُوا مِنَ الصَّدَقَةِ وَمِن أَفضَلِ ما تَتَصَدَّقُ بِهِ الآنَ 10 ثَوَان مِنْ وَقْتِكَ لِنشَرِ هذا الكَلامَ بِنِيَّةِ النَّصْحِ فَالكَلمَةُ الطَّيِّبَةُ صَدَقَةٌ.
    আর, গুরুত্ববহ এই সাদাকাহ’র কাজটি তুমি এই কথাগুলো ছড়িয়ে দিয়ে মাত্র ১০ সেকেন্ড সময় ব্যয় করে করতে পারো, যদি তোমার উদ্দেশ্য হয় এর মাধ্যমে মানুষকে উপদেশ প্রদান করা। কারণ, উত্তম কথা হল এক ধরণের সাদাকাহ।।।

    -সংগৃহীত
    মৃত্যু নিয়ে এতো সুন্দর লেখা আগে পড়িনি একটু পড়েই দেখুন না। জাযাকাল্লাহ। পরলোকগত কুয়েতি লেখক আব্দুল্লাহ যারাল্লাহ'র মৃত্যুর আগে লিখে যাওয়া কিছু অনুভূতি - ------------------------------------------------------------------------------ "মৃত্যু নিয়ে আমি কোনো দুশ্চিন্তা করবো না, আমার মৃতদেহের কি হবে সেটা নিয়ে কোন অযথা আগ্রহ দেখাবো না। আমি জানি আমার মুসলিম ভাইয়েরা করণীয় সবকিছুই যথাযথভাবে করবে।" يُجَرِّدُونَنِي مِنْ مَلَابِسِي তারা প্রথমে আমার পরনের পোশাক খুলে আমাকে বিবস্ত্র করবে, يَغْسِلُونَني আমাকে গোসল করাবে, يَكْفِنُونَنِي (তারপর) আমাকে কাফন পড়াবে, يُخْرِجُونَنِي مِنْ بَيْتِي আমাকে আমার বাসগৃহ থেকে বের করবে, يَذهَبُونَ بِي لِمَسَكِنِي الجَدِيدِ (القَبْرُ) আমাকে নিয়ে তারা আমার নতুন বাসগৃহের (কবর) দিকে রওনা হবে, وَسَيَأتِي كَثِيرُونَ لِتَشْيِيْعِ الجَنَازَتِي আমাকে বিদায় জানাতে বহু মানুষের সমাগম হবে, بَلْ سَيَلْغِي الكَثِيرُ مِنهُم أَعْمَالَهُ وَمَوَاعِيدَهُ لِأَجْلِي دَفْنِي অনেক মানুষ আমাকে দাফন দেবার জন্য তাদের প্রাত্যহিক কাজকর্ম কিংবা সভার সময়সূচী বাতিল করবে, وَقَدْ يَكُونُ الكَثِيرُ مِنهُم لَمْ يَفَكِّرْ في نَصِيحَتِي يَوماً مِنْ الأيّامِ কিন্তু দুঃখজনকভাবে অধিকাংশ মানুষ এর পরের দিনগুলোতে আমার এই উপদেশগুলো নিয়ে গভীর ভাবে চিন্তা করবে না, أَشْيَائِي سَيَتِمُّ التَّخَلُّصُ مِنهَا আমার (ব্যক্তিগত) জিনিষের উপর আমি অধিকার হারাবো, مَفَاتِيحِي আমার চাবির গোছাগূলো, كِتَابِي আমার বইপত্র, حَقِيبَتِي আমার ব্যাগ, أَحْذِيَتِي আমার ‍জুতোগুলো, وإنْ كانَ أَهْلِي مُوَفِّقِينَ فَسَوفَ يَتَصَدِّقُونَ بِها لِتَنْفَعَنِي হয়তো আমার পরিবারের লোকেরা আমাকে উপকৃত করার জন্য আমার ব্যবহারের জিনিসপত্র দান করে দেবার বিষয়ে একমত হবে, تَأَكِّدُوا بِأَنَّ الدُّنيا لَنْ تَحْزَنْ عَلَيَّ এ বিষয়ে তোমরা নিশ্চিত থেকো যে, এই দুনিয়া তোমার জন্য দু:খিত হবে না অপেক্ষাও করবে না, وَلَنْ تَتَوَقَّفْ حَرَكَةُ العَالَمِ এই দুনিয়ার ছুটে চলা এক মুহূর্তের জন্যও থেমে যাবে না, وَالاِقْتِصَادُ سَيَسْتَمِرُ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড কিংবা ব্যবসাবাণিজ্য সবকিছু চলতে থাকবে, وَوَظِيْفَتِي سَيَأتِي غَيرِي لِيَقُومَ بَها আমার দায়িত্ব (কাজ) অন্য কেউ সম্পাদন করা শুরু করবে, وَأَمْوَالِي سِيَذْهَبُ حَلَالاً لِلوَرَثِةِ আমার ধনসম্পদ বিধিসম্মত ভাবে আমার ওয়ারিসদের হাতে চলে যাবে, بَينَمَا أنا سَأُحَاسِبُ عَليها অথচ এর মাঝে এই সম্পদের জন্য আমার হিসাব-নিকাশ আরম্ভ হয়ে যাবে, القَلِيلُ والكَثِيرُ.....النَقِيرُ والقَطمِيرُ...... ছোট এবং বড়….অনুপরিমাণ এবং কিয়দংশ পরিমান, (সবকিছুর হিসাব) وَإن أَوَّلَ ما مَوتِي هو اِسمِي !!!! আমার মৃত্যুর পর সর্বপ্রথম যা (হারাতে) হবে, তা আমার নাম!!! لِذَلكَ عِنْذَما يَمُوتُ سَيَقُولُونَ عَنِّي أَينَ "الجُنَّةُت"...؟ কেননা, যখন আমি মৃত্যুবরণ করবো, তারা আমাকে উদ্দেশ্য করে বলবে, কোথায় “লাশ”? وَلَن يَنَادُونِي بَاِسمِي.... কেউ আমাকে আমার নাম ধরে সম্বোধন করবে না, وَعِندَما يُرِيدُونَ الصَّلاةَ عَلَيَّ سِيَقُلُونَ اُحْضُرُوا "الجَنَازَةَ" !!! যখন তারা আমার জন্য (জানাযার) নামাজ আদায় করবে, বলবে, “জানাযাহ” নিয়ে আসো, وَلَن يُنَادُونِي يِاسْمِي ....! তারা আমাকে নাম ধরে সম্বোধন করবে না….! وَعِندَما يَشْرَعُونَ بِدَفنِي سَيَقُولُونَ قَرِّبُوا المَوتَ وَلَنْ يَذكُرُوا اِسمِي ....! আর, যখন তারা দাফন শুরু করবে বলবে, মৃতদেহকে কাছে আনো, তারা আমার নাম ধরে ডাকবে না…! لِذَلِكَ لَن يَغُرَّنِي نَسبِي وَلا قَبِيلَتِي وَلَن يَغُرَّنِي مَنْصَبِي وَلا شَهرَتِي .... এজন্যই দুনিয়ায় আমার বংশপরিচয়, আমার গোত্র পরিচয়, আমার পদমযার্দা, এবং আমার খ্যাতি কোনকিছুই আমাকে যেন ধোঁকায় না ফেলে, فَمَا أَتْفَهُ هَذِهِ الدُّنْيَا وَمَا أَعْظَمَ مُقَلِّبُونَ عَليهِ ..... এই দুনিয়ার জীবন কতই না তুচ্ছ, আর, যা কিছু সামনে আসছে তা কতই না গুরুতর বিষয়… فَيا أَيُّهَا الحَيُّ الآنَ ..... اِعْلَمْ أَنَّ الحُزْنَ عَليكَ سَيَكُونُ على ثَلَاثَةٍ أَنْواعٍ: অতএব, (শোন) তোমরা যারা এখনো জীবিত আছো,….জেনে রাখো, তোমার (মৃত্যুর পর) তোমার জন্য তিনভাবে দু:খ করা হবে, 1ــ النَّاسُ الَّذِينَ يَعْرِفُونَكَ سَطْحَيّاً سَيَقُولُونَ مِسْكِينٌ ১. যারা তোমাকে বাহ্যিক ভাবে চিনতো, তারা তোমাকে বলবে হতভাগা, 2ــ أَصْدِقَاؤُكَ سَيَحْزُنُونَ سَاعَات أَو أَيَّامَاً ثُمَّ يَعُودُونَ إِلَى حَدِيثِهِم بَلْ وَضَحِكَهُم..... ২. তোমার বন্ধুরা বড়জোর তোমার জন্য কয়েক ঘন্টা বা কয়েক দিন দু:খ করবে, তারপর, তারা আবার গল্পগুজব বা হাসিঠাট্টাতে মত্ত হয়ে যাবে, 3ــ الحُزْنُ العَمِيقُ فِي البَيْتِ سَيَحْزُنُ أَهْلِكَ أُسْبُوعاً.... أُيسْبُوعَينِ شَهراً ....شَهرَينِ أَو حَتَّى سَنَةً وَبَعْدَهَا سَيَضْعُونَكَ فِي أَرْشِيفِ الذَّكَرِيّاتِ !!! ৩. যারা খুব গভীর ভাবে দু:খিত হবে, তারা তোমার পরিবারের মানুষ, তারা এক সপ্তাহ, দুই সপ্তাহ, একমাস, দুইমাস কিংবা বড় জোর একবছর দু:খ করবে। এরপর, তারা তোমাকে স্মৃতির মণিকোঠায় যত্ন করে রেখে দেবে!!! اِنْتَهَتْ قِصَّتُكَ بَينَ النَّاسِ وَبَدَأَتْ قِصَّتُكَ الحَقِيْقِيّةِ وَهِيَ الآخِرةُ .... মানুষদের মাঝে তোমাকে নিয়ে গল্প শেষ হয়ে যাবে, অত:পর, তোমার জীবনের নতুন গল্প শুরু হবে, আর, তা হবে পরকালের জীবনের বাস্তবতা, لَقدْ زَالَ عِندَكَ: তোমার নিকট থেকে নি:শেষ হবে (তোমার): 1ــ الجَمَالُ ১. সৌন্দর্য্য 2ــ والمَالُ ২. ধনসম্পদ 3ــ والصَحَّةُ ৩. সুস্বাস্থ্য 4ــ والوَلَدُ ৪. সন্তান-সন্তদি 5ــ فَارقَت الدَّور ৫. বসতবাড়ি 6ــ القُصُورُ ৬. প্রাসাদসমূহ 7ــ الزَوجُ ৭. জীবনসঙ্গী وَلَمْ يَبْقِ إِلَّا عَمَلُكَ তোমার নিকট তোমার ভালো অথবা মন্দ আমল ব্যতীত আর কিছুই অবশিষ্ট থাকবে না, وَبَدَأَتِ الحَيَاةُ الحَقِيقَيَّةُ শুরু হবে তোমার নতুন জীবনের বাস্তবতা, وَالسُّؤَالُ هُنا : ماذا أَعْدَدْتَ لِلقُبَرِكَ وَآخِرَةَكَ مِنَ الآنَ ؟؟؟ আর, সে জীবনের প্রশ্ন হবে: তুমি কবর আর পরকালের জীবনের জন্য এখন কি প্রস্তুত করে এনেছো? هَذِهِ حَقِيقَةٌ تَحْتَاجُ إلى تَأمَّلٍ *ব্স্তুত: এই জীবনের বাস্তবতা সম্পর্কে তোমাকে গভীর ভাবে মনোনিবেশ করা প্রয়োজন,* لِذَلِكَ أحرصُ عَلى : এজন্য ‍তুমি যত্নবান হও, 1ــ الفَرَائِضِ ১. ফরজ ইবাদতগুলোর প্রতি 2ــ النَّوَافِلِ ২. নফল ইবাদতগুলোর প্রতি 3ــ صَدَقَةُ السِّرِّ ৩. গোপন সাদাকাহ’র প্রতি 4ــ عَمَلُ الصَّلِحِ ৪. ভালো কাজের প্রতি 5ــ صَلاةُ اللَّيلِ ৫. রাতের নামাজের প্রতি لَعَلَّكَ تَنْجُو.... যেন তুমি নিজেকে রক্ষা করতে পারো…. إِنْ سَاعَدْتَ عَلى تَذْكِيرِ النَّاسِ بِهَذِهِ المُقَالَةِ وَأنتَ حَيُّ الآنَ سَتَجِدُ أَثَرَ تَذكِيرِكَ في مِيزَانِكَ يَومَ القِيامَةِ بِإِذْنِ اللهِ ..... এই লিখাটির মাধ্যমে তুমি মানুষকে উপদেশ দিতে পারো, কারণ তুমি এখনো জীবিত আছো, এর ফলাফল আল্লাহ’র ইচ্ছায় তুমি কিয়ামত দিবসে মিজানের পাল্লায় দেখতে পাবে, قال الله تَعالى : ((فَذَكِّرْ فَإِنَّ الذِّكْرَ تَنْفَعُ المُؤمِنِينَ)) আল্লাহ বলেন: ((আর স্মরণ করিয়ে দাও, নিশ্চয়ই এই স্মরণ মুমিনদের জন্য উপকারী)) لِمَاذَا يَخْتَارُ المَيِّتِ "الصَّدَقَةَ لو رَجَعَ للدُّنيا.... তুমি কি জানো কেন মৃতব্যক্তিরা সাদাকাহ প্রদানের আকাঙ্খা করবে, যদি আর একবার দুনিয়ার জীবনে ফিরতে পারতো? كَمَا قَالَ تَعَالى: ((رَبِّ لَو لا أَخَّرْتَنِي إلى أَجَلٍ قَرِيبٍ فَأَصَّدَّقَ....)) আল্লাহ বলেন: ((হে আমার রব! যদি তুমি আমাকে আর একটু সুযোগ দিতে দুনিয়ার জীবনে ফিরে যাবার, তাহলে আমি অবশ্যই সাদাকাহ প্রদান করতাম….)) ولَمْ يَقُلْ : তারা বলবে না, لِأعتَمَرَ উমরাহ পালন করতাম, أو لِأُصَلَّي অথবা, সালাত আদায় করতাম, أو لِأصُومُ অথবা, রোজা রাখতাম, قالَ العُلَماءُ : ما ذَكَرَ المَيِّتُ الصَّدَقَةَ إلا لِعَظِيمِ مَا رَأى مِن أَثَرِها بَعدَ مَوتِهِ আলেমগণ বলেন: মৃতব্যক্তিরা সাদাকাহ’র কথা বলবে, কারণ তারা সাদাকাহ প্রদানের ফলাফল তাদের মৃত্যুর পর দেখতে পাবে, فَأَكْثِرُوا مِنَ الصَّدَقَةِ وَمِن أَفضَلِ ما تَتَصَدَّقُ بِهِ الآنَ 10 ثَوَان مِنْ وَقْتِكَ لِنشَرِ هذا الكَلامَ بِنِيَّةِ النَّصْحِ فَالكَلمَةُ الطَّيِّبَةُ صَدَقَةٌ. আর, গুরুত্ববহ এই সাদাকাহ’র কাজটি তুমি এই কথাগুলো ছড়িয়ে দিয়ে মাত্র ১০ সেকেন্ড সময় ব্যয় করে করতে পারো, যদি তোমার উদ্দেশ্য হয় এর মাধ্যমে মানুষকে উপদেশ প্রদান করা। কারণ, উত্তম কথা হল এক ধরণের সাদাকাহ।।। -সংগৃহীত
    3
    1 Comments 0 Shares
  • #শোক_সংবাদঃ
    চলে গেলেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।
    انا لله وانا اليه راجعون. اللهم اغفر ذنوبه جميعا واجعل قبره روضة من رياض الجنة واجعل الجنة مثواه امين يا رب العالمين

    জীবনের সর্বোচ্চ সময়কাল যিনি অতিবাহিত করেছেন হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এর দরসে এবং গবেষণায়।
    মহান আল্লাহ এই দ্বীনি রাহবারকে জান্নাতুল ফেরদাউস এর মেহমান হিসেবে কবুল করুন! আমীন!
    #শোক_সংবাদঃ চলে গেলেন হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী। انا لله وانا اليه راجعون. اللهم اغفر ذنوبه جميعا واجعل قبره روضة من رياض الجنة واجعل الجنة مثواه امين يا رب العالمين জীবনের সর্বোচ্চ সময়কাল যিনি অতিবাহিত করেছেন হাদীসে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের এর দরসে এবং গবেষণায়। মহান আল্লাহ এই দ্বীনি রাহবারকে জান্নাতুল ফেরদাউস এর মেহমান হিসেবে কবুল করুন! আমীন!
    5
    0 Comments 0 Shares
  • বিশ্বের সমস্ত শক্তি আল্লাহর দেয়া জীবন বিধানকে পৃথিবীর বুক থেকে মুছে ফেলার চেষ্টা করছে আমার মুসলমান যুবকরা বেঁচে থাকতে তা হতে পারে না।
    হয় বাতিলের উৎখাত করে সত্যের প্রতিষ্টা করবো,
    নচেৎ সে চেষ্টায় আমাদের জীবন শেষ হয়ে যাবে....!!!!


    শহিদ : আব্দুল মালেক
    বিশ্বের সমস্ত শক্তি আল্লাহর দেয়া জীবন বিধানকে পৃথিবীর বুক থেকে মুছে ফেলার চেষ্টা করছে আমার মুসলমান যুবকরা বেঁচে থাকতে তা হতে পারে না। হয় বাতিলের উৎখাত করে সত্যের প্রতিষ্টা করবো, নচেৎ সে চেষ্টায় আমাদের জীবন শেষ হয়ে যাবে....!!!! শহিদ : আব্দুল মালেক
    3
    0 Comments 0 Shares
  • Alhamdulillah ❤️
    Finally, I have successfully completed the "Preacher and Imam-Khatib Training Course" Organized by International Islamic University Chittagong (IIUC) Quranic Sciences Club.

    Many Many thanks and appreciation to the authorities of the Quranic Sciences Club, whose tireless work has enabled me to complete this course. May Allah Ta'ala accept and grant this great initiative. Amen.
    Alhamdulillah ❤️ Finally, I have successfully completed the "Preacher and Imam-Khatib Training Course" Organized by International Islamic University Chittagong (IIUC) Quranic Sciences Club. Many Many thanks and appreciation to the authorities of the Quranic Sciences Club, whose tireless work has enabled me to complete this course. May Allah Ta'ala accept and grant this great initiative. Amen.
    8
    1 Comments 0 Shares
  • কয়েক সেকেন্ডের কথাগুলো একবার শুনুন,
    ২০১৮ সালের কিছু কথা এবং বর্তমান বাস্তবতা।

    #বক্তব্য: মুফতি কাজী ইবরাহিম (হাফিঃ)
    কয়েক সেকেন্ডের কথাগুলো একবার শুনুন, ২০১৮ সালের কিছু কথা এবং বর্তমান বাস্তবতা। #বক্তব্য: মুফতি কাজী ইবরাহিম (হাফিঃ)
    6
    14 0 Comments 0 Shares
  • চাচার রিক্সায় চড়বেন.....??
    কেন চড়বেন না.....??
    বয়স্ক মানুষ বলে টানতে পারবে না..??
    দয়া,ভদ্রতা,মনুষ্যত্ব দেখিয়ে চড়বেন না.....??
    তাহলে উনি পেসেন্জার পাবেন কোথায়..??
    উনি করবেন কি..??
    উনি খাবেন কি...??
    ওনার সাথে অন্যায় করলেন না তো...??

    এমন চিন্তা বাদ দিন, উনি পারবেন বলেই এই কঠিন কে ভালবেসেছে। অন্য কোন পথ না পেয়েই এই কাজ পছন্দ করেছে। পারবে কি পারবে না ডিসাইড করার আপনি কে ?

    উনার রিক্সায় উঠুন,পারলে ১০ টাকার ভাড়া ১৫ টাকা দিন,টানতে না পারলে বুঝতে না দিয়ে বলুন চাচা আমার এখানেই কাজ আছে এখানেই রাখুন, ফুল ভাড়া টা দিয়ে দিন।

    এই সব মানুষ হাত পাতবে না, তাই যদি করতো তবে এই বয়সে অন্যের মত ভিক্ষা করতো। দিন শেষে উনি কোন পরিবার প্রধান, উনাকে সন্মান দিয়ে কথা বলুন। ©
    চাচার রিক্সায় চড়বেন.....?? কেন চড়বেন না.....?? বয়স্ক মানুষ বলে টানতে পারবে না..?? দয়া,ভদ্রতা,মনুষ্যত্ব দেখিয়ে চড়বেন না.....?? তাহলে উনি পেসেন্জার পাবেন কোথায়..?? উনি করবেন কি..?? উনি খাবেন কি...?? ওনার সাথে অন্যায় করলেন না তো...?? এমন চিন্তা বাদ দিন, উনি পারবেন বলেই এই কঠিন কে ভালবেসেছে। অন্য কোন পথ না পেয়েই এই কাজ পছন্দ করেছে। পারবে কি পারবে না ডিসাইড করার আপনি কে ? উনার রিক্সায় উঠুন,পারলে ১০ টাকার ভাড়া ১৫ টাকা দিন,টানতে না পারলে বুঝতে না দিয়ে বলুন চাচা আমার এখানেই কাজ আছে এখানেই রাখুন, ফুল ভাড়া টা দিয়ে দিন। এই সব মানুষ হাত পাতবে না, তাই যদি করতো তবে এই বয়সে অন্যের মত ভিক্ষা করতো। দিন শেষে উনি কোন পরিবার প্রধান, উনাকে সন্মান দিয়ে কথা বলুন। ©
    4
    0 Comments 0 Shares
More Stories