#হারাম_থেকে_সাবধানঃ

বর্তমানে অনলাইনে টাকা উপার্জনের অনেক এপস অথবা ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে সর্বত্র ফিতনার ছড়াছড়ি। টাকা আয় করা যাবে অমুক এপ দিয়ে এই শিরোনাম দেখলেই আমরা হুমড়ি খেয়ে পড়ি। অথচ এই ইনকামের টাকা টা কি হালাল নাকি হারাম তা নিয়ে কোনো কুন্ঠাবোধ নেই আমাদের।

বর্তমানে আয়ের জন্য ৫ টি জনপ্রিয় এপ্স হলো ফেসবুক, ইউটিউব, Spc, টিকটক আর স্ন্যাক ভিডিও। এই প্রত্যেকটি এপস থেকেই উপার্জন অবশ্যই হালাল হবে না। কারন গুলো আসুন জেনে নেই।

১) YouTube & Facebook : অনেকেই ভাবছেন যে ইউটিউব আর ফেসবুকে তো সবাই নিজের মেধা খাটিয়ে কন্টেন্ট বানিয়ে উপার্জন করে তাহলে সেটা কেনো হারাম?

কারন সত্যি বলতে এই দুটোতেই টাকা পাওয়ার উৎস হলো "AdSense "। অর্থাৎ আপনার ভিডিও তে ইউটিউব, ফেসবুক কতৃপক্ষ তাদের পছন্দমতো এড চালাবে আর এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। যত বেশি এড তত বেশি ইনকাম। মুল যেই ভিডিও আপনি বানান তার কোয়ালিটি আর ভিউ যতই বেশি হোক না কেন তা ম্যাটারই করে না!! অরিজিনাল ভিউ থেকে আয় এতই নগন্য যে তা আপনি নাই ধরতে পারেন।

আপনার মনে এবার প্রশ্ন জাগতে পারে " AdSense " কেন হারাম?
কারন একটাই AdSense এর মাধ্যমে যে এড আপনাত ভিডিওতে চলবে তার উপর আপনার কোনো অধিকার নাই। আপনি জাস্ট কোন ক্যাটাগরির এড আপনার ভিডিওতে চলবে তা চয়েজ করতে পারবেন। এবার তারা তাদের ইচ্ছামতো গান, নাচ, অশ্লীল ভিডিও, বেপর্দা নারীদের ভিডিও এড হিসেবে দেখালেও আপনার তাই মেনে নিতে হবে। আর ম্যাক্সিমাম এড এই রিলেটেড ই হয়। এবার বুঝে দেখুন এটা হালাল তো নয় ই উলটো হারাম!! এই জন্য বিভিন্ন ইসলামিক স্কলারস রা তাদের ভিডিওতে AdSense বন্ধ করে রাখেন কারন তারা শুধু দ্বীন প্রচারের জন্য ভিডিও আপলোড করেন তা থেকে লাভের আশায় নয়।

২) SPC : এটাও ইদানীং অনেকেই ব্যবহার করেন। এই এপসের মুল কাজ হলো প্রথমে আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করবেন তারপর একটা নির্ধারিত কাজ করতে করতে একসময় সেই ইনভেস্টমেন্ট এর টাকাটা উঠে যাবে আর এরপর যে টাকা আপনি আয় করবেন তা আপনার লাভ। কিন্তু গন্ডগোল হলো কাজটা নিয়ে। এই এপসেও বিভিন্ন এড কয়েক সেকেন্ড আপনাকে দেখতে হবে। এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। অর্থাৎ সেই ঘুরে ফিরে AdSense এর মতোই হারাম আর অশ্লীলতার প্রসার!!

৩) Tiktok & Snack video : এই দুটো এপস ইদানীং এতো বেশি মাত্রায় ব্যবহার করছে যে এটা নিয়ে না লিখলেই নয়। টিকটক তো অশ্লীলতায় ভরা সেটা সবাই জানি আমরা। কয়েক সেকেন্ডের গানে নেচে, গেয়ে, মুখ মিলিয়ে বিভিন্ন ভঙিমায় ভিডিও করা হয় যা স্পষ্টত হারাম। আর এই হারাম এপস থেকে টাকা নেয়া কি তাহলে হালাল হবে?
ঠিক স্ন্যাক এপেও ভিডিও দেখার জন্যই টাকা দেয়া হয়। অনেককে আবার বলতে দেখেছি যে আমি তো ভিডিও দেখি না, আমি শুধু রেফার করি। আর ভাই, কথা তো একই!! উল্টো এটা আরো জঘন্য কেননা আপনি আরেকজনকে একটা অশ্লীল প্ল্যাটফর্মে ইনভাইট করছেন। সে এই ইনভাইটেশন গ্রহণ করলে যত গুলো ভিডিও সে দেখবে তার সমপরিমাণ গুনাহ আপনার আমলনামায় ও লিখা হবে। আল্ল-হুম্মাগ'ফিরলি!! এবার ভাবুন এই টাকা হালাল হওয়ার আদৌ কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা!

শেষ যমানায় মানুষ হারামকে হালাল করার প্রচেষ্টা করবে। আর এখন তাই হচ্ছে।একজন মুসলিম কখনোই টাকার জন্য নিজের ইমানের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো কাজ করতে পারে না। তাই, আসুন এই এপস গুলো নিজে ব্যবহার থেকে বিরত থাকি আর অন্যদের ও সাবধান করি। না হয় এর দায়ভার আমাদের সবার নিতে হবে।
#হারাম_থেকে_সাবধানঃ বর্তমানে অনলাইনে টাকা উপার্জনের অনেক এপস অথবা ওয়েবসাইট রয়েছে যেগুলোতে সর্বত্র ফিতনার ছড়াছড়ি। টাকা আয় করা যাবে অমুক এপ দিয়ে এই শিরোনাম দেখলেই আমরা হুমড়ি খেয়ে পড়ি। অথচ এই ইনকামের টাকা টা কি হালাল নাকি হারাম তা নিয়ে কোনো কুন্ঠাবোধ নেই আমাদের। বর্তমানে আয়ের জন্য ৫ টি জনপ্রিয় এপ্স হলো ফেসবুক, ইউটিউব, Spc, টিকটক আর স্ন্যাক ভিডিও। এই প্রত্যেকটি এপস থেকেই উপার্জন অবশ্যই হালাল হবে না। কারন গুলো আসুন জেনে নেই। ১) YouTube & Facebook : অনেকেই ভাবছেন যে ইউটিউব আর ফেসবুকে তো সবাই নিজের মেধা খাটিয়ে কন্টেন্ট বানিয়ে উপার্জন করে তাহলে সেটা কেনো হারাম? কারন সত্যি বলতে এই দুটোতেই টাকা পাওয়ার উৎস হলো "AdSense "। অর্থাৎ আপনার ভিডিও তে ইউটিউব, ফেসবুক কতৃপক্ষ তাদের পছন্দমতো এড চালাবে আর এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। যত বেশি এড তত বেশি ইনকাম। মুল যেই ভিডিও আপনি বানান তার কোয়ালিটি আর ভিউ যতই বেশি হোক না কেন তা ম্যাটারই করে না!! অরিজিনাল ভিউ থেকে আয় এতই নগন্য যে তা আপনি নাই ধরতে পারেন। আপনার মনে এবার প্রশ্ন জাগতে পারে " AdSense " কেন হারাম? কারন একটাই AdSense এর মাধ্যমে যে এড আপনাত ভিডিওতে চলবে তার উপর আপনার কোনো অধিকার নাই। আপনি জাস্ট কোন ক্যাটাগরির এড আপনার ভিডিওতে চলবে তা চয়েজ করতে পারবেন। এবার তারা তাদের ইচ্ছামতো গান, নাচ, অশ্লীল ভিডিও, বেপর্দা নারীদের ভিডিও এড হিসেবে দেখালেও আপনার তাই মেনে নিতে হবে। আর ম্যাক্সিমাম এড এই রিলেটেড ই হয়। এবার বুঝে দেখুন এটা হালাল তো নয় ই উলটো হারাম!! এই জন্য বিভিন্ন ইসলামিক স্কলারস রা তাদের ভিডিওতে AdSense বন্ধ করে রাখেন কারন তারা শুধু দ্বীন প্রচারের জন্য ভিডিও আপলোড করেন তা থেকে লাভের আশায় নয়। ২) SPC : এটাও ইদানীং অনেকেই ব্যবহার করেন। এই এপসের মুল কাজ হলো প্রথমে আপনি কিছু টাকা ইনভেস্ট করবেন তারপর একটা নির্ধারিত কাজ করতে করতে একসময় সেই ইনভেস্টমেন্ট এর টাকাটা উঠে যাবে আর এরপর যে টাকা আপনি আয় করবেন তা আপনার লাভ। কিন্তু গন্ডগোল হলো কাজটা নিয়ে। এই এপসেও বিভিন্ন এড কয়েক সেকেন্ড আপনাকে দেখতে হবে। এর বিনিময়েই আপনাকে টাকা দিবে। অর্থাৎ সেই ঘুরে ফিরে AdSense এর মতোই হারাম আর অশ্লীলতার প্রসার!! ৩) Tiktok & Snack video : এই দুটো এপস ইদানীং এতো বেশি মাত্রায় ব্যবহার করছে যে এটা নিয়ে না লিখলেই নয়। টিকটক তো অশ্লীলতায় ভরা সেটা সবাই জানি আমরা। কয়েক সেকেন্ডের গানে নেচে, গেয়ে, মুখ মিলিয়ে বিভিন্ন ভঙিমায় ভিডিও করা হয় যা স্পষ্টত হারাম। আর এই হারাম এপস থেকে টাকা নেয়া কি তাহলে হালাল হবে? ঠিক স্ন্যাক এপেও ভিডিও দেখার জন্যই টাকা দেয়া হয়। অনেককে আবার বলতে দেখেছি যে আমি তো ভিডিও দেখি না, আমি শুধু রেফার করি। আর ভাই, কথা তো একই!! উল্টো এটা আরো জঘন্য কেননা আপনি আরেকজনকে একটা অশ্লীল প্ল্যাটফর্মে ইনভাইট করছেন। সে এই ইনভাইটেশন গ্রহণ করলে যত গুলো ভিডিও সে দেখবে তার সমপরিমাণ গুনাহ আপনার আমলনামায় ও লিখা হবে। আল্ল-হুম্মাগ'ফিরলি!! এবার ভাবুন এই টাকা হালাল হওয়ার আদৌ কোনো সম্ভাবনা আছে কিনা! শেষ যমানায় মানুষ হারামকে হালাল করার প্রচেষ্টা করবে। আর এখন তাই হচ্ছে।একজন মুসলিম কখনোই টাকার জন্য নিজের ইমানের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো কাজ করতে পারে না। তাই, আসুন এই এপস গুলো নিজে ব্যবহার থেকে বিরত থাকি আর অন্যদের ও সাবধান করি। না হয় এর দায়ভার আমাদের সবার নিতে হবে।
3
0 Comments 0 Shares
Post