Web Analytics

রাশিয়ান “দ্যা সাইলেন্ট কিলার” হিসাবে খ্যাত ইয়াসেন ক্লাস নিউক্লিয়ার অ্যাটাক সাবমেরিন।


Russain Yasen-class nuclear attack submarine
সভ্যতার উন্নতির সাথে সাথে মানুষের জীবন যাত্রার মানও উন্নতি হয়েছে। এই উন্নতির সাথে সাথে যু

.

রাশিয়ান “দ্যা সাইলেন্ট কিলার” হিসাবে খ্যাত ইয়াসেন ক্লাস নিউক্লিয়ার অ্যাটাক সাবমেরিন। Russain Yasen-class nuclear attack submarine সভ্যতার উন্নতির সাথে সাথে মানুষের জীবন যাত্রার মানও উন্নতি হয়েছে। এই উন্নতির সাথে সাথে যুদ্ধক্ষেত্রের উপকরণেরও উন্নতি হয়েছে।প্রাথমিক যুগে মানুষ যুদ্ধ করত পাথর আর লাঠি দিয়ে।তারপর ঢাল-তলোয়ার, তীর-ধনুক ইত্যাদি।যুগের উন্নতির সাথে সাথে যুদ্ধ ক্ষেত্রে বহুমুখি উন্নয়নের ফলসরুপ সর্ভিসে আসছে সাবমেরিন। আপনি একটা বিষয় খেয়াল করুন,আকাশে থাকা হুমকি গুলোকে প্রতিহত করার জন্য বর্তমানে স্যাম থেকে শুরু করে অনেক উন্নত প্রযুক্তি রয়েছে।কিন্তু সাবমেরিন প্রতিহত করার মত প্রযুক্তি খুব কম।তাই এটিকে গুপ্তঘাতক বলা চলে।আর সাবমেরিন যদি স্টিলেথ হয়, তা আর 'ত কথায় নাই।রাশিয়ান নৌ-বাহিনীর সামুদ্রের যে অতন্দ্র প্রহরি গুলো রয়েছে, তার মধ্যে একটি হচ্ছে, দ্যা সাইলেন্ট কিলার হিসাবে খ্যাত ইয়াসেন ক্লাস সাবমেরিন।এই সাবমেরিন গুলোলো প্রজেক্টট ৮৮৫ এর আওতায় তৈরী করা হয়। Russain Yasen-class nuclear attack submarine বর্তমান বিশ্বে প্রথম সারির যে সাবমেরিন গুলো রয়েছে,তার মধ্যে ইয়াসিন ক্লাস সাবমেরিন অন্যতম।কোল্ড ওয়ারের সময় তৎকালিন সোভিয়েত ইউনিয়ন সাবমেরিন তৈরীতে পশ্চিমাদের থেকে অনেক এগিয়ে ছিল।কিন্তু সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙ্গে যাবার পর বিভিন্ন কারণে বর্তমান রাশিয়া অনেকটা পিছিয়ে পরে।ইয়াসেন ক্লাস সাবমেরিন হচ্ছে রাশিয়ার সার্ভিসে থাকা সর্বাধুনিক নিউক্লিয়ার পাওয়ার্ড স্টিলেথ এট্যাক সাবমেরিন। এটি মূলত একটি নিউক্লিয়ার গাইডেড মিসাইল সাবমেরিন।মূলত সোভিয়েত আমলের আকুলা অস্কার ক্লাস এট্যাক সাবমেরিন গুলোকে রিপ্লেস করার জন্য এই ইয়াসেন ক্লাস সাবমেরিন কে সার্ভিসে আনা হচ্ছে।ইয়াসেন ক্লাস সাবমেরিনে ব্যবহিত প্রযুক্তি এতটাই উন্নত এবং এর ডিজাইন ও স্টিলথ কার্জকারিতা এতটা ভালো যে শুধু রাশান নয় কিছু কিছু আমেরিকান সাবমেরিন বিশেষজ্ঞ কেও মুগ্ধ করেছে।২০০৯ সালের আগস্টের US Naval Intelligence এর এক রিপোর্ট মতে Yasen ক্লাসের সাবমেরিন গুলো আমেরিকান যে কোন সাবমেরিন এর চাইতে Least Detectable or Quietest. submarine nuclear reactor এই সাবমেরিনগুলোর ওয়াটার ডিসপ্লেসমেন্ট সাবমার্জড অবস্থায় প্রায় ১৩,৮০০ টন এবং সার্ফেসড অবস্থায় প্রায় ৮,৬০০ টন। এগুলোর দৈর্ঘ্য প্রায় ১২০ মিটার, বিম প্রায় ১৫ মিটার । এটির শক্তির উৎস হিসাবে রয়েছে, ১টি কেটিএম pressurized ওয়াটার নিউক্লিয়ার রিএ্যাক্টর।যা একে সাবমার্জড অবস্থায় ৬৫ কিলোমিটার আর সার্ফেসড অবস্থায় ৩৭ কিলোমিটার প্রতিঘন্টার স্পিডে চালাতে সক্ষম। এর অপারেশনাল ডেপথ ৬০০+ মিটার পর্যন্ত কিন্তু আসলে আরও বেশি গভীরতায় যেতে সক্ষম। এই সাবমেরিনগুলো রেঞ্জ আনলিমিটেট বা সীমাহীন। এটি পরিমিত খাদ্য ও রসদ নিয়ে একটানা ১+ বছর সামুদ্রে ডুবে থাকতে সক্ষম।এই সাবমেরিন টি পরিচালনা করতে ৯০ জন ক্রু প্রয়োজন হয়। Russain Yasen-class nuclear attack submarine এতে ভার্টিকাল লাঞ্চ টিউব গুলোতে রয়েছে ৬টি ভিএলএস সিস্টেম। এর ভার্টিকাল লাঞ্চ টিউব গুলোতে ৩২টি অনিক'স এসএলসিএম মিসাইল, বা ৪০টি কালিবার পিএল এএসএলএম অথবা এসএলসিএম, ল্যান্ড আ্যাটাক সাবমেরিন ল্যান্চ ওয়েপন রয়েছে। তাছাড়া এটি কেএইস-১০১ ক্রুস মিসাইল বহন করতে পারে ।এতে আটটি ৬৫০ মি.মি. এবং ২ টি ৫৩৩ মি.মি টর্পেডো টিউব রয়েছে যা থেকে প্রায় সব ধরণের ৫৩৩ মি.মি. টর্পেডো ছোড়া যায়। বর্তমানে এই ক্লাসের ১টা সাবমেরিন সার্ভিসে রয়েছে।এবং ২০২০ সালের মধ্যে আরও ৫টা এই ক্লাসের সাবমেরিন সার্ভিসে আসবে।